Logo

মাশরাফিদের জয়ে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

মাশরাফিদের জয়ে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

মিরাজের বোলিং নৈপূণ্যের পর তামিম-সৌম্যরদুর্দান্ত ব্যাটিং। এই তিন ক্রিকেটারের অসাধারণ পারফরম্যান্সে ভর করে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। এই জয়েতিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ২-১ ব্যবধানেজিতল টাইগাররা। মাশরাফি বিন মুর্তজার নেতৃত্বাধীন ক্রিকেট দলের এই জয়ে অভিনন্দন জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি আবদুলহামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সিলেট স্টেডিয়ামে প্রথমবার ওয়ানডে ম্যাচ খেলতে নেমেই জয়ের ইতিহাস গড়ল বাংলাদেশ। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ৮ উইকেটে জিতে রেকর্ড গড়ল টাইগাররা। এর আগে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে ক্যারিবীয়দের হোয়াইটওয়াশ করে সাকিব আল হাসানের বাহিনী।আগামী সোমবার সিলেটের এই ভেুন্যতে তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ শুরু হবে। শুক্রবার এই ম্যাচে জয়ের মধ্য দিয়ে এক বছরে সবচেয়ে বেশি (২০টি) ওয়ানডে জয়ের রেকর্ড গড়ল টাইগাররা। চলতি বছরে এনিয়ে ৪১টি ম্যাচ খেলে ২০টিতে জয় পায় বাংলাদেশ। এর আগে ২০০৬ সালে ৩৩ ম্যাচে ১৯টিতে জয় পেয়েছিল টাইগাররা। প্রথমে ব্যাট করে শাই হোপের (১০৮) সেঞ্চুরিতে ৯ উইকেটে ১৯৮ রান সংগ্রহ করে উইন্ডিজ। বাংলাদেশ দলের হয়ে ২৯ রানে ৪ উইকেট শিকার করেন মেহেদী হাসান মিরাজ। টার্গেট তাড়া করতে নেমে উদ্বোধনীতে ৪৫ রানের জুটি গড়ে সাজঘরে ফেরেন ওপেনার লিটন কুমার দাস। আগের ম্যাচে ৮ রান করা লিটন এদিন ফেরেন ২৩ রানে। এরপর তামিম ইকবালের সঙ্গে দ্বিতীয় উইকেটে ১৩১ রানের জুটি গড়ে দলের জয়ের পথ তৈরি করেন সৌম্য সরকার। ক্যারিয়ারের সপ্তম ফিফটি তুলে নিয়ে সাজঘরে ফেরেন জাতীয় দলের এই তারকা ওপেনার। পাওয়েলের শিকারে পরিণত হওয়ার আগে ৮১ বলে পাঁচ চার ও সমান ছক্কায় ৮১ রান করে ফেরেন সৌম্য। এর আগে সবশেষ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে চট্টগ্রামে গত ২৬ অক্টোবর সেঞ্চুরি (১১৭) করেন সৌম্য সরকার। সৌম্যর বিদায়ের পর মুশফিকুর রহিমকে সঙ্গে নিয়ে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন তামিম। আগের ম্যাচে মিরপুরে ৫০ রান করা তামিম ইকবাল, এদিন ১০৪ বলে নয়টি বাউন্ডারির সাহায্যে অপরাজিত ৮১ রানের ইনিংস খেলে দলকে জয় উপহার দেন। এদিন ওয়ানডে ক্যারিয়ারে ১৮৬তম ম্যাচে ৪৪তম ফিফটি করেন তামিম। একদিনের ক্রিকেটে দেশের হয়ে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহ করা এই ওপেনার ১১টি সেঞ্চুরিও হাঁকিয়েছেন। সংক্ষিপ্ত স্কোর ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ৫০ ওভারে ১৯৮/৯(শাই হোপ ১০৮*, স্যামুয়েলস ১৯; মিরাজ ৪/২৯)। বাংলাদেশ: ৩৮.৩ ওভারে ২০২/২ ( তামিম ৮১*, সৌম্য ৮০, লিটন ২৩, মুশফিক ১৬* )। ফল: বাংলাদেশ ৮উইকেটে জয়ী। ম্যাচসেরা: মেহেদী হাসান মিরাজ (বাংলাদেশ)।