Logo

ছোটদের পছন্দ গল্প আর আবিষ্কারের বই

ছোটদের পছন্দ গল্প আর আবিষ্কারের বই

শনিবার সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ছিল অমর একুশে বইমেলার শিশুপ্রহর। এদিন সকাল থেকেই শিশুদের মেলায় নিয়ে আসেন বাবা-মায়েরা, শিশু প্রহরে শিশুদের পছন্দের বইটি কিনে দিতে দেখা যায় তাদের। মেলার প্রায় প্রতিটি স্টলে ছিল শিশুদের আনাগোনা। কেউ বাবা-মায়ের পছন্দের কেউ আবার নিজের পছন্দে বই কিনছে। স্টলগুলোতে কথা বলে জানা গেল, শিশু ও অভিভাবক উভয়ের পছন্দের তালিকার শীর্ষে রয়েছে বিজ্ঞানভিত্তিক নানা আবিষ্কার ও কার্টুন চরিত্রের গল্পের বই।

সকালে বইমেলার বাংলা একাডেমি অংশে গিয়ে সবচেয়ে বেশি ভিড় দেখা যায় বাংলাদেশ শিশু একাডেমির স্টলে। শিশুদের জন্য রচনা- গল্প, ভ্রমণ কাহিনী, রূপকথাসহ অন্যান্য বই রয়েছে এই স্টলে।

book fair

স্টলটির বিক্রয় কর্মকর্তা মো. মনির হোসেন  বলেন, শিশুরা নানা বইয়ের সূচি, অধ্যায় ঘেটে দেখছে। পছন্দ না হলে রেখে দিচ্ছে। আমাদের স্টলে শিশুদের পছন্দের তালিকায় রয়েছে কিশোর রায়চৌধুরীর ‘নির্বাচিত রচনা’, হান্স ক্রিস্টিয়ান এন্ডারসনের ‘নির্বাচিত রূপকথা’, শিশু একাডেমির ‘শিশু বিশ্বকোষ অ থেকে ঔ’, ‘ছোটদের বিজ্ঞান কোষ থ থেকে হ’।

মেলার ১ থেকে ৩ নম্বর স্টলের মুক্তধারা প্রকাশনীতে শিশুদের জন্য রয়েছে ‘মুক্তিযুদ্ধের কিশোর গল্প’, জাহান আরা খাতুনের ‘বাঘ মামার মেয়ের বিয়ে’, আলী ইমামের ‘অদ্ভুত যত ভূত’ শাহজাহান কিবরিয়া ‘শেয়াল আর শেয়াল’, ড. রবীন্দ্রনাথ শীল এর ‘বিজ্ঞানের নানা আবিষ্কার’।

মুক্তধারার বিক্রয় প্রতিনিধি রিয়াদ বলেন, শিশুরা সবচেয়ে বেশি বিজ্ঞানভিত্তিক নতুন নতুন আবিষ্কারের বই খুঁজছে। আমাদের স্টলেও সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয়েছে ‘বিজ্ঞানের নানা আবিষ্কার’ ও ‘মুক্তিযুদ্ধের কিশোর গল্প’ বইটি।

book fair

মেলায় সবচেয়ে বেশি গল্পের বই ছিল শেখ রাসেল শিশু-কিশোর পরিষদের স্টলে। স্টলটি থেকে শিশুরা বার্বি গার্ল, সিন্ডারেলা, আলাদীনের জাদুর চেরাগ, ঠাকুরমার ঝুলি, ওগি দ্যা ককরোচ বইগুলো কিনছে।

বাবার সঙ্গে বই মেলায় ঘুরতে এসেছে আনোয়ারা বেগম মুসলিম বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী তাজরীন ইয়াসমিন। সে জানায়, প্রতিবছরই মেলায় আসি। নতুন নতুন গল্পের বই কিনে নিয়ে যাই। আগে অনেক বই কিনতাম কিন্তু পড়ার সময় থাকে না, তাই এবার মাত্র চারটি বই কিনেছি এগুলো পড়ে শেষ করতে পারলে আবারো মেলায় আসবো।

book fair

এদিকে মেলার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের অংশে গিয়েও শিশু চত্বরের আশেপাশের স্টলগুলোতে দেখা গেছে শিশুদের ভিড়। এদের মধ্যে সিসিমপুরের স্টলে বেশি ভিড় দেখা যায়। মেলায় শিশুদের জন্য এবার ১৩টি নতুন বই এনেছে সিসিমপুর। এর মধ্যে ‘কিনবো যা দরকারের’, ‘খোকা মিয়া ও গাছপালা’ উল্লেখযোগ্য।

এছাড়াও চিলড্রেন্স পাবলিকেশন, শিশুরাজ্য, শৈশব প্রকাশ, সিসিমপুর, ঘুড়ি প্রকাশন, মাহি প্রকাশনী, ছোটদের মেলা, শিলা প্রকাশনী, বাবুই, ঘাস ফড়িংসহ প্রায় সব কয়টি স্টল মুখরিত ছিল শিশুদের পদচারণায়।

১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া বইমেলা চলবে মাসব্যাপী। মেলায় প্রতি শুক্রবার ও শনিবার সকাল ১১টা থেকে ১টা পর্যন্ত চলবে শিশুপ্রহর।