Logo

আয়কর দিতে সবাইকে উৎসাহিত করতে হবে

আয়কর দিতে সবাইকে উৎসাহিত করতে হবে

বিভুরঞ্জন সরকার : ফাঁকি দেয়ার প্রবণতা কি আমাদের জাতিগত বৈশিষ্ট্যের মধ্যে পড়ে? ঢালাও বললে হয়তো অনেকে আপত্তি করবেন। তবে এটা ঠিক যে আমাদের মধ্যে নেতিবাচক প্রবণতা বেশি। যেটা করা উচিত নয়, সেটা করার লোভ আমরা সামলাতে পারি না। আমরা নিজে যেটা করি না, সেটা অন্যের কাছে আশা করি। নিজে সৎ না থেকে অন্যের কাছে সততা আশা করি। আমাদের দেশে মানুষের মাথা পিছু আয় বেড়েছে। এমনকি অর্থবিত্তের অধিকারী মানুষের সংখ্যাও বেড়েছে। এক সময় আমরা ছিলাম চরম অভাবগ্রস্ত জাতি। বিদেশি ঋণ ও সাহায্যনির্ভরতার দুঃসয় দিন পার হয়ে আত্মনির্ভরতার পথে হাঁটতে শুরু করেছি। ফাঁকির প্রবণতা কম হলে আমরা আরো বেশি সফলতার দিকে যেতে পারবো।

আয় করলে আয়কর দিতে হয়। জনগণের টাকায়ই সরকার চলে, দেশ চলে। কর না দেয়ার বা কর ফাঁকি দেয়ার অভ্যাস কারো কারো মধ্যে প্রবল। বিশেষত যাদের আয় বেশি, কর দেয়ার সক্ষমতা বেশি, ফাঁকি দেয়ার প্রবণতাও তাদের মধ্যেই বেশি। তবে সাম্প্রতিক সময়ে সরকার এবং সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানসমূহের নানামুখী উদ্যোগের ফলে কর আদায় পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতু নির্মাণের সক্ষমতা ও সাহস দেখাতে পারার পেছনে দেশীয় সম্পদ সংগ্রহ পরিস্থিতির উন্নতি একটি কারণ। সম্প্রতি দেশব্যাপী আয়কর মেলার আয়োজন করা হয়েছিলো। তাতে দেখা যাচ্ছে আয়কর আদায় এবার আরও বেড়েছে। বেশি লোক রিটার্ন জমা দিয়েছে। অনেকে এজন্য আরও সময় নিয়েছে। তাতে আয়কর আদায় আরও বাড়বে। এনবিআর আয়কর আদায় বাড়াতে উদ্যোগী। মানুষের মধ্যেও আগ্রহ বেড়েছে। কালো টাকাকে সাদা করার সুযোগ দিয়ে রেখেও লাভ হচ্ছে না সেভাবে। সরকার আহরিত কর-রাজস্বের মূল অংশ এখনও আয়কর ও ভ্যাট।